WBBSE Madhyamik Toppers 2022: ১ থেকে দশে ১১৪ জন

0

নিউজ ডেস্ক, ৩ জুন: এ বারে অষ্টম স্থানাধিকারীর সংখ্যা ২২ জন। নবম স্থানে রয়েছে ১৫ জন পড়ুয়া। ৪০ জন রয়েছে দশম স্থানে। ১ থেকে দশে রয়েছে ১১৪ জন পড়ুয়া। 


মাধ্যমিক পরীক্ষায় (WB Madhyamik Results 2022) রাজ্যে প্রথম স্থানে দুই পড়ুয়া। যুগ্ম ভাবে প্রথম হয়েছে বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই এবং বর্ধমান সিএমএস স্কুলের রৌনক মণ্ডল। অর্ণব এবং রৌনক, দু'জনেরই প্রাপ্ত নম্বর ৬৯৩। পরীক্ষায় দ্বিতীয় হয়েছে কৌশিকী সরকার এবং রৌনক মণ্ডল নামের আরও ছাত্র। পরীক্ষায় তৃতীয় স্থানাধিকারী অনন্যা দাশগুপ্ত (Madhyamik Rank Holders)। 

এ বারে পরীক্ষায় চতুর্থ হয়েছে অভিষেক দত্ত। ৬৯০ পেয়েছে সে। শ্রুতর্ষি ত্রিপাঠি, কলকাতার পাঠভবন স্কুলের ছাত্রও ৬৯০ পেয়ে চতুর্থ হয়েছে। পঞ্চম স্থান অধিকার করেছে ১১ জন। বর্ধমান বিদ্যার্থী ভবনের সাবিনা ইয়াসমিন পঞ্চম স্থানে রয়েছে। আবার ঝাড়গ্রামে পৌলমী বেরাও পঞ্চম স্থানে। তাদের প্রাপ্ত নম্বর ৬৮৯। 

ষষ্ঠ স্থান অধিকার করেছেন ৬ জন। হুগলির নিরুপম দাস ৬৮৮ পেয়ে ষষ্ঠ। আরামবাগের সম্পূর্ণা নন্দী ৬৮৮ পেয়ে ষষ্ঠ। আসানসোলের সৈকতকুমার গঙ্গোপাধ্যায় ৬৮৮ পেয়ে ষষ্ঠ। পূর্ব মেদিনীপুরের প্রতীক মাইতি ৬৮৮ পেয়ে ষষ্ঠ। ১০ জন সপ্তম স্থান অধিকার করেছেন। কোচবিহারের অনন্য দেব সপ্তম স্থান অধিকার করেছেন। বালুরঘাট হাইস্কুলের সৌগত ঘোষ সপ্তম স্থান অধিকার করেছেন। মেদিনীপুরের রনিত সাউ সপ্তম স্থান অধিকার করেছেন। বাঁকুড়ার সিঞ্চন দত্ত ৬৮৭ পেয়ে সপ্তম স্থান অধিকার করেছেন। 

দার্জিলিংয়ের সারদা শিশুতীর্থ সেবক রোড হাইস্কুলের ছাত্রী জুনায়না পরভীন অষ্টম স্থান দখল করেছে। তার প্রাপ্ত নম্বর ৬৮৬। কৃষ্ণপুর হাইস্কুলের ব্রাত্য বসু অষ্টম স্থান অধিকার করেছেন। সিউড়ির মৃত্যুঞ্জয় মণ্ডল অষ্টম স্থান অধিকার করেছেন। বীরভূমের মধুরিমা দে ৬৮৬ পেয়ে অষ্টম স্থান অধিকার করেছেন। বাঁকুড়ায় অনিমেষ নায়েক ৬৮৬ পেয়ে অষ্টম স্থান অধিকার করেছেন। পুরুলিয়া রামকৃষ্ণ মিশন বিদ্যাপীঠের অভ্র চট্টোপাধ্যায় অষ্টম স্থান অধিকারী। এ বারে অষ্টম স্থানাধিকারীর সংখ্যা ২২ জন।


নবম স্থানে রয়েছে ১৫ জন পড়ুয়া। বিশ্বদীপ মণ্ডল, বৈরাথিগুড়ি হাইস্কুিল। ৬৮৫ পেয়ে নবম হয়েছে। বর্ধমান টাউন স্কুলের সৌরভ দে, বর্ধমান মিউনিসিপাল হাইস্কুলের অঙ্কুর ঘোষ, কাশিয়াড়ার পায়েল দাস, কালনার কাশীরাম দাস ইনস্টিটিউশনের সুরথ ঘোষও নবম হয়েছে। 


৪০ জন পড়ুয়া রয়েছে দশম স্থানে। আলিপুর দুয়ার নিউটাউন গার্লস হাইস্কুলের সমৃদ্ধে দে ৬৮৪ পেয়ে দশম হয়েছে। কোচবিহার বিবেকানন্দ বিদ্যাপীঠের বিতান দে, তুফানগঞ্জ দীপেন্দ্র নারায়ণ স্কুলের রূপম বর্মন এবং অমৃতা মোপালও দশম স্থানে রয়েছে। গোপালনগর এমএসএস হাইস্কুলের সায়ন্তিকা বর্মন, কোচবিহারের মাথাভাঙার রিফত তমন্না, নাফিসা হুসেনও দশম হয়েছে। এ বারে ১ থেকে দশে রয়েছে ১১৪ জন পড়ুয়া। 


এ বার মাধ্যমিকের ফলপ্রকাশ হচ্ছে পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৭৯ দিনের মাথায়। পরীক্ষা দিয়েছেন প্রায় ১১ লক্ষ পড়ুয়া. ছাত্রদের তুলনায় ছাত্রীদের সংখ্যা ১১ শতাংশ বেশি। ছাত্রদের তুলনায় ছাত্রীর সংখ্যা ১ লক্ষ ২০ হাজার ৯৬১ জন বেশি। এ বছরও পাশের হারে প্রথম পূর্ব মেদিনীপুর। পূর্ব মেদিনীপুরে পাশের হার ৯৭.৬৩ শতাংশ। কালিম্পং, পশ্চিম মেদিনীপুর, কলকাতায় পাশের হার ৯৪ শতাংশর বেশি। উত্তর ২৪ পরগনায় পাশের হার ৯১.৯৮ শতাংশ। দক্ষিণ ২৪ পরগনায় পাশের হার ৮৯.০৮ শতাংশ। ঝাড়গ্রামে পাশের হার ৯২.৫৯ শতাংশ।

ছাত্রদের থেকে পাশের হারে পিছিয়ে মেয়েরা

এ বারের পরীক্ষায় পাশ করেছে ৯ লক্ষ ৪৯ হাজার ৯২৭ জন। এ বারের মাধ্যমিকে কোনও ফলাফল অসম্পূর্ণ নেই। এবছর পরীক্ষায় পাশের হার ৮৬.৬ শতাংশ। ছাত্রদের পাশের হার ৮৮.৫৯ শতাংশ। ছাত্রীদের পাশের হার ৮৫ শতাংশ। স্ক্রুটিনির জন্য সময় দেওয়া হচ্ছে ১৫ দিন।


আপনারা আমাদের ওয়েবসাইট www.dnnbanglamarket.com এ গিয়ে টি শার্ট কিনতে পারবেন। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0মন্তব্যসমূহ

Please Type Your Valuable Feedback.
Keep Supporting. Flow as on YouTube & Facebook.

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)