তথাগত কি বিজেপি ছাড়লেন! বিদায় জানিয়ে টুইট সকাল সকাল

শনিবার সকাল সকাল তথাগত রায়ের টুইট ঘিরে জমাট বাঁধল জল্পনা। তবে কি বিজেপি (BJP) ছাড়লেন বর্ষীয়ান নেতা? এমনিতে তাঁর টুইটের শেষ নেই। দিনভর প্রচুর টুইট করেন তথাগত রায়। কিন্তু এদিন সকালে টুইটে স্পষ্ট লিখলেন, 'আপাতত বিদায় পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি'। বারাসাতে মাছ চোর সন্দেহে শিশুকে তুলে আছাড়! আরজিকরে মৃত্যু একরত্তির বেশ কিছুদিন ধরেই রাজ্য বিজেপি নেতাদের প্রতি ক্ষোভ উগরে দিচ্ছিলেন তথাগত রায়।

কোনওভাবেই তাঁর সঙ্গে বাকিদের মত মিলছিল না। আর এই দ্বন্দ্ব তিনি রাখঢাকও করছিলেন না। দিলীপ ঘোষদের নিশানা করে তথাগতর টুইট দলের অস্বস্তি বাড়াচ্ছিল দিন দিন। দিলীপ ঘোষ বনাম তথাগত রায়ের দ্বন্দ্ব তো রীতিমতো হাসির খোরাক হয়ে উঠেছিল। এদিন সকালে তথাগত রায় টুইটে লিখলেন, কারও কাছ থেকে বাহবা পাওয়ার জন্য আমি টুইটগুলো করছিলাম না। দলের কিছু নেতৃস্থানীয় লোক যেভাবে কামিনী-কাঞ্চনে গা ভাসিয়েছিলেন সেটা সম্বন্ধে দলকে সজাগ করার জন্য করছিলাম। এবার ফলেন পরিচীয়তে। পুরভোটের ফলের জন্য প্রতীক্ষায় থাকব। আপাতত বিদায়, পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি !
সরাসরি না হলেও রাজ্য বিজেপির থেকে যে দূরত্ব তৈরি করলেন তথাগত, তা বলাই বাহুল্য। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, গত কয়েকদিন ধরে যেভাবে বাংলার বিজেপি নেতাদের নিয়ে বেলাগাম মন্তব্য করে চলেছিলেন ত্রিপুরার প্রাক্তন রাজ্যপাল, তাতে দিল্লি থেকে কোনও বার্তা এসে থাকতে পারে। হয়তো কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের অসন্তোষেই আপাতত চুপ করার সিদ্ধান্ত নিলেন বর্ষীয়ান নেতা। তবে সঙ্গে একথাও জানাতে ভুললেন না তিনি পুরভোটের ফলের অপেক্ষায় থাকবেন। এ প্রসঙ্গে তথাগত রায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি টুইটে যা বলেছি, তার বাইরে একটি কথাও বলব না। ব্যাখ্যা যে যেমন চায় করতে পারে। তাঁকে প্রশ্ন করা হয়, আপনি কি তাহলে বিজেপি ছাড়লেন, নাকি পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির সঙ্গে আপাতত সম্পর্ক রাখবেন না? তথাগতর জবাব, 'যে যেমন অর্থ করতে চায় করতে পারে।' তাঁকে বলা হল, আপনার টুইট দেখে মনে হচ্ছে, দল ছাড়বেন, কী ছাড়বেন না, তা নিয়ে দোলাচলে আছেন। স্পষ্ট করেই বলুন, বিজেপিতে আছেন না নেই? বিজেপির প্রাক্তন রাজ্য সভাপতির উত্তর, 'জবাব একটাই, যে যেমন পারেন অর্থ করে নিন।' 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ