১০ মাস পেরিয়ে গেলেও হাতে আসেনি পদ্মশ্রী, অপেক্ষায় দিন গুনছেন কিংবদন্তী কার্টুনিস্ট নারায়ণ দেবনাথ

রূপায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়: হাজারো দুষ্টুমিতে ভরা কার্টুন চরিত্র হাঁদাভোঁদা, নন্টেফন্টে কিংবা বাঁটুল দ্য গ্রেট মানেই তিনি। শিশুমনের অলিগলিতে তাঁর অবাধ বিচরণ। তিনি কিংবদন্তী কার্টুনিস্ট নারায়ণ দেবনাথ (Narayan Debnath)। গত জানুয়ারিতেই কেন্দ্রীয় সরকার তাঁকে পদ্মশ্রী সম্মান দিয়েছে। কথা ছিল তাঁকে দিল্লিতে নিয়ে যাওয়া হবে। তা হয়নি, আবার দশ মাস পেরোলেও খেতাবই পৌঁছয়নি নারায়ণ দেবনাথের কাছে। খেতাব নিয়ে অন্ধকারে দেবনাথ পরিবারও।

২০২১-এর পদ্মসম্মান প্রাপক রাজ্যের সাতজনের মধ্যে পদ্মশ্রী প্রাপকদের মধ্যে ছিলেন হাওড়ার (Howrah) শিবপুরের বাসিন্দা কিংবদন্তী কার্টুনিস্ট। ৯৮ বছর বয়সী নারায়ণবাবু অসুস্থ, শয্যাশায়ী। তাই কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে বলা হয়েছিল, পুরস্কার নেওয়ার জন্য তাঁর পরিবারের দু’জন সদস্যকে দিল্লি আসতে হবে। নারায়ণবাবুর ছেলে তাপস দেবনাথ জানালেন, “খেতাব আনতে আমাদের পরিবারের তরফে যাওয়ার কথা ছিল আমার ছোট মেয়ে অ্যালিসিয়া ও দিদির ছেলে স্বর্ণাভর। তারপর কেন্দ্রের তরফে জানানো হয় দিল্লি যাওয়ার দরকার নেই। বাড়িতেই পৌঁছে দেওয়া হবে অভিজ্ঞানপত্র। আর কোনও যোগাযোগ করা হয়নি।”

[আরও পড়ুন: কলকাতা হাই কোর্টের নির্দেশে মুর্শিদাবাদের স্কুলশিক্ষকের চাকরি বাতিল করল SSC]

২০১২ সালে হাঁজাভোঁদার ৫০ বছর পূর্ণ হয়েছিল। বিখ্যাত ওই কার্টুন চরিত্রের বর্তমান বয়স ৫৯ বছর। আর বাঁটুল চরিত্র ২০২১ সালে ৫৬ বছরে পা রেখেছে। নন্টেফন্টেও পা রেখেছে ৫২ বছরে। নারায়ণ দেবনাথের এই তিনটি কার্টুন ৫০ বছর ধরে চলা বিরল। ২০১৩ সালে সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কার পেয়েছে। ২০২১-এ পদ্মশ্রী। শিবপুর বাজারে নিজের বাড়িতে এখন কার্যত ঘরবন্দি নারায়ণ দেবনাথ। একা বিছানা থেকে নামতেও পারেন না। তাপসবাবু জানালেন, “কবে পদ্মশ্রী খেতাব হাতে আসবে, আমরা উদগ্রীব হয়ে আছি। কার সঙ্গে যোগাযোগ করব জানি না। পুরোটাই অন্ধকারে।” কিংবদন্তীর পরিবারের আরজি, জীবিত থাকাকালীন যাতে উনি (নারায়ণ দেবনাথ) খেতাব হাতে পৌঁছে দিক কেন্দ্র।

[আরও পড়ুন: কলকাতা হাই কোর্টের নির্দেশে মুর্শিদাবাদের স্কুলশিক্ষকের চাকরি বাতিল করল SSC]



from মহানগর – Sangbad Pratidin https://ift.tt/3dpbQzX

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ